আবরার হত্যা: গণশপথ নিয়ে আন্দোলনের সমাপ্তি ঘোষণা শিক্ষার্থীদের

গণশপথের মধ্যদিয়ে বাংলাদেশ প্রকৌশল বিশ্ববিদ্যালয়ে (বুয়েট) শিক্ষার্থীদের চলমান আন্দোলনের আপাতত সমাপ্তি ঘোষণা করা হয়েছে।

বুধবার (১৬ অক্টোবর) দুপুরে এই গণশপথ অনুষ্ঠিত হয়।

শপথ গ্রহণ অনুষ্ঠান শুরু হয় বুধবার দুপুর সোয়া একটার দিকে। আন্দোলনকারী শিক্ষার্থী রাফিয়া রিজওয়ানা শপথ পরিচালনা করেন। এতে শপথগ্রহণ করেন উপাচার্য অধ্যাপক ড. সাইফুল ইসলাম, ছাত্রকল্যাণ পরিষদের পরিচালক মিজানুর রহমান, হলের প্রভোস্ট এবং শিক্ষার্থীরা। বুকে হাত রেখে দাঁড়িয়ে সবাই শপথ নেন।

এর আগে শুরুতে আবরারের প্রতি শ্রদ্ধা জানানো হয়৷ উপাচার্য শপথ অনুষ্ঠানে আসেন দুপুর একটা ১১ মিনিটে। শিক্ষক সমিতির সভাপতি অধ্যাপক একেএম মাসুদ, ছাত্রকল্যাণ পরিষদের পরিচালক মিজানুর রহমান, বিভিন্ন অনুষদের ডিন, বিভিন্ন হলের প্রভোস্টরাও এসময় উপস্থিত ছিলেন।

তবে সবাই শপথগ্রহণ করলেও শিক্ষকদেরকে শপথ না নিতে বলেন শিক্ষার্থীরা৷ শুধু প্রশাসনিক দায়িত্ব রয়েছেন যারা তারা শপথ নেন।

শপথ অনুষ্ঠান শেষে উপাচার্য অধ্যাপক ড.সাইফুল ইসলাম সাংবাদিকদের বলেন, তদন্ত কমিটির প্রতিবেদন পাওয়ার পর অভিযুক্তদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কারের বিষয়ে যিদ্ধান্ত নেওয়া হবে।

শিক্ষার্থীরা জানিয়েছেন, চার্জশিট হওয়ার পর অভিযুক্তদের স্থায়ীভাবে বহিষ্কার না করা পর্যন্ত কোনও অ্যাকাডেমিক কার্যক্রমে অংশ নেবেন না তারা। এ বিষয়ে উপাচার্য শিক্ষার্থীদের ক্লাস-পরীক্ষায় বর্জন করে সময় নষ্ট না করার আহ্বান জানান।

প্রসঙ্গত, রবিবার (৬ অক্টোবর) রাতে হলের দ্বিতীয়তলা থেকে আবরার ফাহাদ নামের এক ছাত্রের মরদেহ উদ্ধার করে বুয়েট কর্তৃপক্ষ।

নিহত আবরার ইলেক্ট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেক্ট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের দ্বিতীয় বর্ষের ছাত্র। তার গ্রা‌মের বা‌ড়ি কু‌ষ্টিয়ার কুমারখালীতে।

মঙ্গলবার (৮ অক্টোবর) বেলা পৌনে ১১টায় নিজ বাসার সামনে আবরারের তৃতীয় জানাজা শেষে স্থানীয় রায়ডাঙ্গা কবরস্থানে তাকে দাফন করা হয়।