অন্তত মানবিক কারণে খালেদা জিয়াকে মুক্তি দিন: ফখরুল

বিএনপির মির্জা ফখরুল বলেন, খালেদা জিয়া অত্যন্ত অসুস্থ। ডাক্তাররা বলছেন, বিলম্ব হলে তাকে সুস্থ অবস্থায় আর পাওয়া যাবে না। এমনকি প্রাণহানিও হতে পারেন। আমরা বলছি, সবকিছু বাদ দেন। অন্তত মানবিক কারণে তাকে মুক্তি দিয়ে তার চিকিৎসার ব্যবস্থা করুন।

শুক্রবার (৬ ডিসেম্বর) জাতীয় প্রেসক্লাবে আব্দুস সালাম হলে ৯০'র ডাকসু ও সর্বদলীয় ছাত্র ঐক্য আয়োজিত খালেদা জিয়ার নিঃশর্ত মুক্তি ও তারেক রহমানের অবৈধ সাজা বাতিল এবং স্বৈরাচার পতন দিবস উপলক্ষে এক আলোচনা সভায় তিনি এসব কথা বলেন।

মির্জা ফখরুল বলেন, কালকে (বৃস্পতিবার,৫ ডিসেম্বর) বিএসএমএমইউর উপাচার্য আদালত অবমাননা করেছেন। কারণ,আদালত  ৫ তারিখের মধ্যে দুটি রিপোর্ট চেয়েছিল। কোর্ট আদেশ দিয়েছিল  যে,এই রিপোর্ট ডাক্তারদের স্বাক্ষরসহ হাজির করতে হবে। কিন্তু তারা করেননি। তার আগের দিন প্রধানমন্ত্রী বললেন — ‘খুব ভালো আছেন, সুস্থ আছেন।’ এজন্যই আদালত অবমাননা হওয়া উচিত ছিল।

তিনি বলেন, আমরা হতাশ হয়েছি, সুপ্রিম কোর্টের বিচার বিভাগ এই বিষয়টাকে লক্ষ্য করেনি। এই বিষয়ে আদালত অবমাননার ব্যবস্থা নেয়নি।

ফখরুল বলেন, দুর্ভাগ্য আজকের জাতি ১৯৭১ সালে যুদ্ধ করেছে। তার মূল বিষয়বস্তু ছিল গণতান্ত্রিক রাষ্ট্রব্যবস্থা। ১৯৯০ সালে স্বৈরাচার এরশাদকে সরিয়ে দিয়ে গণতন্ত্রকে ফিরিয়ে নিয়ে আসছিল। আজকে সেই জাতি গণতন্ত্রবিহীন অবস্থায়। আজকে যারা ক্ষমতায় আছেন তারা, এরশাদের সঙ্গে আঁতাত করে নির্বাচনে গিয়েছি। আজকেও তারা সেই স্বৈরাচার এরশাদের দলের সঙ্গে আঁতাত করে ক্ষমতা দখল করে আছে। এটা কিন্তু বিচ্ছিন্ন ঘটনা নয়।

খালেদা জিয়াকে মুক্ত করা সবচেয়ে বড় চ্যালেঞ্জ মন্তব্য করে বিএনপির এই মহাসচিব বলেন, আইয়ুব খানের বিরুদ্ধে সংগ্রাম করে রাস্তায় নেমে তাকে ক্ষমতা থেকে সরিয়ে দিয়েছে। আজকে তাই আমাদেরকে সংগ্রাম করতে হবে। অন্যায়ের বিরুদ্ধে বিদ্রোহ করতে হবে। আমাদের নেত্রীকে উদ্ধার করতে হবে, গণতন্ত্রকে উদ্ধার করতে হবে। এটাই এখন আমাদের দায়িত্ব।

আলোচনা সভায় ডাকসুর সাবেক ভিপি আমান উল্লাহ আমানসহ অন্য নেতারা উপস্থিত ছিলেন।