নারায়ণগঞ্জের ৩ শীর্ষ কর্মকর্তা কোয়ারেন্টিনে

জ্বর, সর্দি কাশি ও ঠাণ্ডা জনিত রোগে অসুস্থ হয়ে পড়েছেন লকডাউন ঘোষিত জেলা নারায়ণগঞ্জের জেলা প্রশাসক মো. জসীম উদ্দিন, পুলিশ সুপার মোহাম্মদ জায়েদুল আলম এবং সিভিল সার্জন ডা. মোহাম্মদ ইমতিয়াজ।

যেকারণে তাদের হোম কোয়ারেন্টাইনে থাকতে বলা হয়েছে।

এর আগে বুধবার (৮ এপ্রিল) দুপুরে জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনের করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে ঢাকায় আইইডিসিআরে পাঠানো হয়েছে। পাশাপাশি জেলা পুলিশ সুপার (এসপি) জায়েদুল আলম কোয়ারেন্টাইনে আছেন বলে জানা গেছে।

এছাড়া জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিন মঙ্গলবার রাত থেকে হঠাৎ অসুস্থ বোধ করলে বুধবার নিজ বাংলোয় রেস্টে ছিলেন তিনি। বাংলো থেকে জেলা স্বাস্থ্য বিভাগের লোকজন দুপুরে তার করোনাভাইরাস পরীক্ষার জন্য নমুনা সংগ্রহ করে আইইডিসিআরে পাঠায়।
সেইসঙ্গে জেলা করোনা প্রতিরোধ কমিটির সদস্য সচিব ও জেলা সিভিল সার্জন মোহাম্মদ ইমতিয়াজ বুধবার রাত থেকে কোয়ারেন্টাইনে আছেন। একইসঙ্গে জেলা করোনার ফোকাল পারসন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম করোনা সন্দেহে বাড়িতে আইসোলেশনে আছেন।

জানা গেছে, জেলা প্রশাসক ও সিভিল সার্জন এবং জেলা করোনার ফোকাল পারসন উপজেলা স্বাস্থ্য কর্মকর্তা জাহিদুল ইসলাম বুধবার অফিস করেননি। তবে তাদের সঙ্গে মুঠোফোনে যোগাযোগ করে সাড়া পাওয়া গেলেও জেলা প্রশাসক জসিম উদ্দিনের মুঠোফোন রিসিভ করেন অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (রাজস্ব) সেলিম রেজা। এছাড়া জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলমও বুধবার অফিসে আসেননি। তিনি কোয়ারেন্টাইনে থাকার বিষয়টি পুলিশের একাধিক কর্মকর্তা জানিয়েছেন।