করোনা: চট্টগ্রামে ভয়াবহ পরিস্থিতি

দেশে করোনা সংক্রমণে ‘হটস্পট’ খ্যাত নারায়ণগঞ্জকে পেছনো ফেললো চট্টগ্রাম। শনিবার একদিনে চট্টগ্রামে ২৭৯ জনের শরীরে করোনা পজিটিভ শনাক্ত হয়। এতে চট্টগ্রামে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়ালো ২৮৬৭ জনে।

আর শনিবার পর্যন্ত নারায়ণগঞ্জে মোট করোনা আক্রান্ত ছিল ২৫৩২ জন।

শনিবার (৩০ মে) চট্টগ্রামে ১২১৯টি নমুনা পরীক্ষায় আরও ২৭৯ জনের করোনাভাইরাস শনাক্ত হয়।

ঢাকা-নারায়ণগঞ্জের প্রায় একমাস পরে করোনাভাইরাসের (কোভিড-১৯) সংক্রমণ শুরু হয়েছিল চট্টগ্রামে। কিন্তু সংক্রমণ শুরুর প্রথম মাসে কিছুটা নিয়ন্ত্রণে থাকলেও দ্বিতীয় মাসে চট্টগ্রামে করোনার বিস্ফোরণ ঘটে।

দেশে করোনাভাইরাস সংক্রমণের সবচেয়ে বিপজ্জনক এলাকা এখন চট্টগ্রাম। অনিয়ন্ত্রিত চলাচল ও ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়ক প্রায় উন্মুক্ত থাকার কারণে চট্টগ্রামে করোনাভাইরাসের বিস্তার দ্রুত ঘটছে।

বিশেষজ্ঞরা উদ্বেগ প্রকাশ করে বলছেন, ঈদের ছুটি শেষে মানুষ নগরে ফিরতে শুরু করায় এ পরিস্থিতির এখন আরও মারাত্মক বিপর্যয় ঘটবে।

মোট আক্রান্ত ২৭৯ জনের মধ্যে মহানগরে ১৮০, বিভিন্ন উপজেলায় ৯১ জন। এর মধ্যে আট জন ঠিকানাবিহীন বলে জানায় জেলা সিভিল সার্জন।

উপজেলায় আক্রান্তদের মধ্যে সর্বোচ্চ হাটহাজারীতে ৩৪ জন। এর পরে আছে সীতাকুণ্ডে ১৪ জন, চন্দনাইশ ১৩ জন, পটিয়া ৬ জন, রাউজান ৫ জন, বোয়ালখালী ৫ জন, বাঁশখালী ৫ জন, লোহাগাড়া ৩ জন, ফটিকছড়ি ২ জন এবং সাতকানিয়া, আনোয়ারা, রাঙ্গুনিয়া ও মিরসরাইয়ে ১ জন করে।

প্রসঙ্গত, এখন পর্যন্ত চট্টগ্রামে মোট করোনা রোগীর সংখ্যা ২ হাজার ৮৬৭ জন। মৃত্যুবরণ করেছেন ৭৪ জন। হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন ২১৭ জন।