সাকিবের সঙ্গে তুলনার কিছু নেই: রশিদ

আজ সোমবার সেমিফাইনালের স্বপ্ন পূরণের প্রথম ধাপে সফল হতে মাঠে নামবে বাংলাদেশ।

বিকালে সাউদাম্পটনের রোজ বেলে আফগানিস্তানের বিপক্ষে হবে ম্যাচটি। ম্যাচটি আফগানিস্তানের জন্য আনুষ্ঠানিকতায় রূপ নিলেও অনন্ত একটি জয় নিয়ে দেশে ফিরতে চায় তারা। তবে ম্যাচটি নিয়ে কোনো চাপ নেই বলে ফুরফুরে মেজাজ দেখা গেল আফগান শিবির। এমনটাই জানালেন সেখানে অবস্থানরত বাংলাদেশি ক্রীড়া সাংবাদিকরা।

গতকাল কোনো অনুশীলন করেনি তারা। ছুটির দিনের মতোই কাটিয়েছেন দিনটিকে।

এদিকে রশিদ-মুজিব আতংক বিরাজ করছে বাংলাদেশ শিবিরে। ম্যাচ পরিকল্পনায় আফগান স্পিনারদের নিয়ে গুরুত্ব বেশি দিচ্ছেন কোচ স্টিভ রোডস।

কেননা ইংল্যান্ডের বিপক্ষে বল হাতে সেঞ্চুরি করার পর ভারতের শক্তিশালী ব্যাটিংয়ের বিপক্ষে ঘুরে দাঁড়িয়েছেন এই আফগান তারকা। আবারও রশিদ খানকে প্রশংসায় ভাসিয়েছেন ক্রিকেটবোদ্ধারা।

তবে রশিদ খানকে নিয়ে বিশ্বক্রিকেটে যতই প্রশংসা হোক নানা কারণে বাংলাদেশি সমর্থকদের কাছে অনেকটা নিন্দিত তিনি। তার মুখে হাসি তেমন একটা পছন্দ নয় বাংলাদেশি ক্রিকেটভক্তদের।

রোজ বেলের পাশেই যে হোটেল রয়েছে সেখানেই ঘাঁটি গেড়েছেন আফগানিস্তান দল।

হোটেলের লবি থেকেই মাঠের খেলা উপভোগ করা যাবে এমন। হোটেলের নিচেই রশিদ খানের সঙ্গে দেখা হয়ে গেল এক বাংলাদেশি ক্রীড়া সাংবাদিকদের।

আলাপচারিতার এক পর্যায়ে ভারতের বিপক্ষের ম্যাচের প্রসঙ্গ আনলে হাসি উড়ে গেল রশিদের মুখ থেকে। ভারতের বিপক্ষে হার মানতেই পারছেন না তিনি।

তিনি জানালেন, ম্যাচটা আমাদের জেতা উচিত ছিল। সেদিন উইকেট থেকে সহায়তা পেয়েছি। আজ একই পিচে বাংলাদেশের বিপক্ষে বল করব।

ইংলিশ কন্ডিশনে এই একটি উইকেট স্পিনবান্ধব বলে মনে করেন রশিদ।

স্পিনবান্ধব হলে একইরকম সহায়তা বিশ্বসেরা অলরাউন্ডার সাকিব আল হাসানও পাবেন এমনটা জানিয়ে রশিদ খানকে জিজ্ঞাসা করা হয়, কে বেশি ভয়ংকর - সাকিব আল হাসান, না রশিদ খান?

দারুণভাবে প্রশ্নটি সামলে নিয়ে আফগান লেগ স্পিনার বলেন, ‘আমরা দুজন দুই ধরনের ক্রিকেটার। দুজনের খেলার ধরণও তাই দুই রকম। এখানে তুলনার কিছু নেই।’

তবে এবারের বিশ্বকাপে বোলিংয়ের চেয়ে ব্যাটিংয়ে বেশ ভালো খেলছেন বলে জানান রশিদ খান। তিনি বলেন, দুর্দান্ত পারফর্ম করছেন সাকিব।

আলাপচারিতার শেষে আগামী বিপিএলে বাংলাদেশে আসছেন বলে জানান রশিদ খান।