৩ মিনিটে ২ গোল করেন মেসি!

যুক্তরাষ্ট্রের নিউ জার্সিতে আর্জেন্টিনা প্রীতি ম্যাচে জ্যামাইকার বিপক্ষে সাতবারের ব্যালন ডি’অর জয়ী লিওনেল মেসির কথাই ছিল না। কিন্তু সবকিছু ওলট পালট করে মাঠে নামলেন আর ৩ মিনিটে ২ গোল করে ফুটবল বিশ্বকে অবাক করে দিলেন। সেই সঙ্গে ফুটবল বিশ্বকে জানান দিলেন এবারের বিশ্বকাপটি যে কোনভাবেই তার চাই। এমন কীর্তির দিনে অনবদ্য এক সেঞ্চুরি করেছেন লিওনেল মেসি।


শারীরিক অসুস্থতা, ঠাণ্ডা-জ্বর মিলিয়ে ফ্লুতে আক্রান্ত ছিলেন মেসি। তাই দলের প্রথম একাদশে জায়গা হারান তিনি। তবে দ্বিতীয়ার্ধের ৫৬তম মিনিটে লাউতারো মার্টিনেজের বদলি হিসেবে মাঠে নামেন। মাত্র ৩৫ মিনিট মাঠে থেকে আদায় করে নেন দুই গোল। সেই সঙ্গে এই দুই গোলের কল্যাণে জাতীয় দলের হয়ে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকার তৃতীয় স্থানে উঠে এলেন মেসি। আর জাতীয় দলের জার্সিতে দেখো পেলেন শততম জয়ের। ২০০৫ সালে হাঙ্গেরির বিপক্ষে প্রীতি ম্যাচে জাতীয় দলের অভিষেকের পর এ নিয়ে ১০০ জয় পেলেন আর্জেন্টাইন ফরওয়ার্ড।


ম্যাচ শুরুর আগে দেশের হয়ে ৮৮ গোল নিয়ে জ্যামাইকার মুখোমুখি হয়েছিলেন আর্জেন্টাইন এই তারকা। জোড়া গোলে মালয়েশিয়ার সাবেক ফুটবলার মোখতার দাহারিকে (১৪২ ম্যাচে ৮৯ গোল) পেছনে ফেলে তিনে উঠে আসেন মেসি। ১৬৪ ম্যাচে এখন মেসির গোলসংখ্যা ৯০।


১৯১ ম্যাচে ১১৭ গোল নিয়ে এই তালিকার শীর্ষে পর্তুগালের তারকা ক্রিস্টিয়ানো রোনালদো। আর ১৪৮ ম্যাচে ১০৯ গোল নিয়ে দ্বিতীয় স্থানে ইরানের সাবেক স্ট্রাইকার আলী দাইয়ি। রোনালদোর পর বর্তমান সময়ে খেলা ইতিহাসের দ্বিতীয় খেলোয়াড় হিসেবে জাতীয় দলের হয়ে শততম গোলের মাইলফলক ডাকছে মেসিকে।


জাতীয় দলের হয়ে আর্ন্তজাতিক ম্যাচে সর্বোচ্চ জয়ের তালিকার শীর্ষ পাঁচে প্রবেশ করলেন মেসি। সর্বোচ্চ ১৮০ ম্যাচে ১৩১ জয় নিয়ে শীর্ষে রয়েছেন পিএসজির মেসির সতীর্থ স্প্যানিশ ডিফেন্ডার সার্জিও রামোস। দ্বিতীয় স্থানে রয়েছেন রামোসেরই স্পেনের সাবেক গোলরক্ষক ইকার ক্যাসিয়াস ১৬৭ ম্যাচে ১২১ জয়। তৃতীয় স্থানটি দখলে রেখেছেন পর্তুগাল ফরোয়ার্ড ক্রিশ্চিয়ানো রোনালদো। তিনি ১৯০ ম্যাচে ১১২টি জয়ের দেখা পেয়েছেন। চতুর্থ স্থানে রয়েছেন মেক্সিকোর সাবেক ডিফেন্সিভ মিডফিল্ডার আন্দ্রে গুয়ার্দাদো তিনি ১৭৭ ম্যাচে ১০১টি জয় দেখেছেন।