ভারতে একসঙ্গে আছড়ে পড়বে দুই ঘূর্ণিঝড়

ভারতের পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে সাগরদ্বীপের কাছে আছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’। অন্য দিকে পূ্র্ব-মধ্য আরব সাগরে ‘সিভিয়ার সাইক্লোনিক স্টর্ম’ বা অতি প্রবল ঝড়ের রূপ নিয়েছে ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’। গুজরাটের কচ্ছ উপকূলে দেবভূমি-দ্বারকা জেলায় এবং দিউ এর উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে বলে মহা।

ওড়িশার কেন্দ্রাপড়া ও জগৎসিংহপুর জেলায় ঘূর্ণিঝড় আঘাত হানার আশঙ্কায় প্রস্তুতি চলছিল। কিন্তু বুধবার সকালের আবহাওয়া বার্তায় বলা হয়েছে, ওড়িশার বদলে পশ্চিমবঙ্গের উপকূলে সাগরদ্বীপের কাছে এবং বাংলাদেশের কেপুপাড়ায় উপকূলে আছড়ে পড়তে পারে ঘূর্ণিঝড়। একইদিনে আছড়ে পড়বে মহাও।

ঘূর্ণিঝড় ‘মহা’র আছড়ে পড়ার আশঙ্কায় গুজরাটের কচ্ছ উপকূলে জারি হয়েছে সতর্কতা। সকাল সাড়ে ৮টায় আবহাওয়া বার্তায় জানানো হয়েছে, আরব সাগরে পোরবন্দরের পশ্চিম-দক্ষিণ-পশ্চিমে ৪০০ কিলোমিটার দূরে অবস্থান করছে ঘূর্ণিঝড় মহা।

‘মহা’র জেরে ভারী বৃষ্টির আশঙ্কায় মহারাষ্ট্রের উপকূলীয় জেলা পালঘরে ৬ থেকে ৮ নভেম্বর পর্যন্ত সমস্ত স্কুল কলেজ বন্ধ রাখা হয়েছে। সংলগ্ন ঠাণে জেলার মৎসজীবীদের সমুদ্রে যেতে নিষেধ করা হয়েছে। গুজরাত ও মহারাষ্ট্রের উপকূলে সতর্ক রয়েছে নৌবাহিনী।

অন্যদিকে আবহাওয়া অফিস জানিয়েছে, পূর্ব-মধ্য ও দক্ষিণ-পশ্চিম বঙ্গোপসাগর এবং উত্তর আন্দামান সাগরের উপর অবস্থিত ঘূর্ণিঝড় ‘বুলবুল’ ঘণ্টায় ৯ কিলোমিটার বেগে পশ্চিম-উত্তর-পশ্চিমের দিকে সরে যাচ্ছে। সকাল সাড়ে ৮টার বার্তায় বলা হয়েছিল, ওই সেটি ওড়িশার পারাদ্বীপ বন্দর থেকে ৮১০ কিলোমিটার দক্ষিণ-দক্ষিণ-পশ্চিমে অবস্থান করছে।

আগামিকাল ৭ নভেম্বর থেকে মৎস্যজীবীদের সমুদ্রে যাওয়ার উপরে নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। ঘূর্ণিঝড়ের প্রভাবে ওড়িশা ও পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন এলাকায় ভারী বৃষ্টি হবে বলেও জানিয়েছে হাওয়া অফিস।