পরমাণু বোমা তৈরি কয়েকগুণ বাড়িয়েছে পাকিস্তান, উদ্বিগ্ন ভারত

কাশ্মীর নিয়ে ভারত-পাকিস্তান দ্বন্দ্ব চরম পর্যায় ধরণ করেছে। এরই মধ্যে খবর পরমাণু অস্ত্রের ভান্ডার কয়েকগুণ বাড়িয়েছে পাকিস্তান। যা নিয়ে বেশ উদ্বিগ্ন ভারত।

জার্মানির গোয়েন্দা সংস্থা বিএফবির ২০১৮-সালের একটি রিপোর্ট অনুযায়ী, জার্মানিসহ অন্যান্য পাশ্চাত্য দেশ থেকে পরমাণু অস্ত্রের উপাদান সংগ্রহ করার পরিমাণ বাড়িয়ে দিয়েছে পাকিস্তান।

২০১০-থেকে এই ধরনের অবৈধ অস্ত্র সংগ্রহের ক্ষেত্রে কিছু নিয়ম পরিবর্তন করে জার্মানি। কিন্তু পাকিস্তানের ক্ষেত্রে ঠিক উল্টোটা। জার্মানি থেকে পরমাণু অস্ত্র তৈরিতে ব্যবহৃত কাঁচামাল কেনা বাড়িয়ে দিয়েছে তারা।

ভারতের একটি গোয়েন্দা রিপোর্টে বলা হয়েছে, শুধু জার্মানি নয়, একাধিক দেশ থেকে প্রযুক্তি এবং উপকরণ সংগ্রহের পরিমাণ বাড়িয়েছে ইসলামাবাদ। আগামিদিনেও তাদের এই চেষ্টা জারি থাকবে বলেই আশঙ্কা প্রকাশ করা হয়েছে। যা নিয়ে তারা উদ্বেগ প্রকাশ করেছে।

বর্তমানে পাকিস্তানের হাতে আছে ১৩০-১৪০টি পরমাণু অস্ত্র। ২০২৫-এর মধ্যে সেই সংখ্যাটা ২৫০-এ নিয়ে যাওয়ার প্রবণতা আছে পাকিস্তানের। ভারতের রিপোর্টেই সেকথা বলা হয়েছে।

মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের নিউক্লিয়ার ইনফরমেশন প্রজেক্ট রিপোর্টে আগেই জানানো হয়েছিল যে, ২০২৫-এর মধ্যে সেই সংখ্যাটা ২৫০-এ নিয়ে যাওয়ার প্রবণতা আছে পাকিস্তানের। ওই রিপোর্ট অনুযায়ী ১৯৯৯ সালে একটি খতিয়ান পেশ করে জানিয়েছিল ২০২০ সালের মধ্যে ৬০-৮০টি পারমাণবিক অস্ত্র থাকবে পাকিস্তানের কাছে। সেই লক্ষ্যমাত্রার অনেক বেশি পরিমাণে অস্ত্র হাতে এসেছে পাকিস্তানের।

ভারতের দাবি, উপগ্রহের চিত্র অনুযায়ী পাকিস্তান সেনা এবং বায়ুসেনা এই পারমাণবিক অস্ত্র ব্যবহার করার জন্য সম্ভার বাড়াচ্ছে। মূলত ভারতের পারমানবিক শক্তিকে ধ্বংস করতেই এই সম্ভার বাড়ানো হচ্ছে। তাতে করে দুই দেশের মধ্যে ভয়াবহ কোনো ঘটনা ঘটে যেতে পারে যদি বিশ্ব এখনই এর বিরুদ্ধে ব্যবস্থা না নেয়।