কাশ্মীর: কূটনীতিকের বক্তব্যে বিপাকে ভারত

যত দিন গড়াচ্ছে কাশ্মীর নিয়ে ভারতের বিপদ ততোই বাড়ছে। শুরুতে মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রসহ বহু দেশ ভারতকে সমর্থন দিলেও দীর্ষ সাড়ে ৩ মাসে উপত্যকার পরিস্থিতি স্বাভাবিক না হওয়ায় এখন তারা সুর চড়াচ্ছে ভারতের বিরুদ্ধে। এবার ভারত সরকারের পদক্ষেপের সমর্থনে দেশটির যুক্তরাষ্ট্রে নিযুক্ত এক কূটনীতিকের বক্তব্য আলোচনার ঝড় তুলেছে।

সম্প্রতি নিউইয়র্কে নিযুক্ত ভারতের কনসাল জেনারেল সন্দীপ চক্রবর্তী কাশ্মীরের প্রবাসী পণ্ডিতদের নিয়ে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে বলেন, ‘আমাদের সামনে ইতোমধ্যে একটি অনুকরণীয় দৃষ্টান্ত রয়েছে…যদি ইসরায়েলি জনগণ পারে…’।

এই মন্তব্যসহ ওই অনুষ্ঠানের ভিডিও অনলাইনে ছড়িয়ে পড়তেই সমালোচনা-নিন্দা শুরু হয়। কারণ নয়াদিল্লি দাবি করে আসছে, কাশ্মীরের পরিস্থিতি শান্তই আছে। জনগণের বৃহত্তর স্বার্থেই সেখানে নিরাপত্তা ব্যবস্থায় কড়াকড়ি রয়েছে।

কনসাল জেনারেল সন্দীপ উপস্থিত পণ্ডিতদের উদ্দেশে বলেন, কাশ্মীরের সংস্কৃতি হিন্দু সংস্কৃতি। আপনারা শিগগির কাশ্মীরে ফেরত যেতে পারবেন। অনেকে (শ্রোতাদের মধ্যে) ইহুদী ইস্যু, ইসরায়েল ইস্যুতে কথা বলেছেন।…তারা তাদের সংস্কৃতিকে নিজেদের ভূমির বাইরেও দুই হাজার বছর বাঁচিয়ে রেখেছে। তাই আমি মনে করি, আমাদেরও উচিত কাশ্মীরী সংস্কৃতিকে বাঁচিয়ে রাখা, কাশ্মীরী সংস্কৃতি হলো ভারতীয় সংস্কৃতি।…এটা হিন্দু সংস্কৃতি। আমরা কাশ্মীর ছাড়া ভারতকে কল্পনাই করতে পারি না।

পাকিস্তানসহ বিভিন্ন সমালোচক দেশের অভিযোগ, মুসলিম সংখ্যাগরিষ্ঠ অঞ্চল কাশ্মীরে ভারতের পদক্ষেপ সেখানে হিন্দুত্ববাদী সংস্কৃতির বীজবপণের জন্য। সন্দীপ চক্রবর্তীর এই বক্তব্যকে সেই অভিযোগের সঙ্গেই মিলিয়ে দিচ্ছেন অনেক টুইটার ব্যবহারকারী।

এ নিয়ে সুর চড়াচ্ছে পাকিস্তান। তারা বলছে মুসলিমদের নির্যাতন করা হচ্ছে কাশ্মীরে। বিষয়টি তারা জাতিসংঘে তুলবে বলেও জানিয়েছে। এতে ভারত কিচুটা বিপাকেই পড়েছে।