কাশ্মীর: ভারতকে বিপদে ফেলে দিল সুইডেন

যতই দিন যাচ্ছে কাশ্মীর নিয়ে ততই চাপের মুখে পড়ছে ভারত সরকার। কাশ্মীরকে গত ৫ আগস্ট কেন্দ্রশাসিত অঞ্চল হিসেবে ঘোষণা করে ভারত। তবে দীর্ঘ সময়েও পরিস্থিতি স্বাভাবিক হয়নি উপত্যকার। সেখানে এখনো জারি জরুরি অবস্থা।

এমন পরিস্থিতিতে কাশ্মীর নিয়ে চাপ দিতে শুরু করেছে ইউরোপের দেশগুলো। যদিও শুরুতে তারা ভারতকে সমর্থন জানিয়েছিল। এখন তারা বলছে কাশ্মীরে মানবাধিকার লঙ্ঘন হচ্ছে।

গত কাল সুইডিশ পার্লামেন্টে কাশ্মীর পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করে সে দেশের বিদেশমন্ত্রী অ্যান লিন্ডে বলেন, উপত্যকা থেকে দ্রুত সব ধরনের নিষেধাজ্ঞা প্রত্যাহার করুক ভারত। একই সঙ্গে কাশ্মীরের বাসিন্দাদের সঙ্গে নিয়েই যেন উপত্যকায় দীর্ঘমেয়াদি সমাধানের জন্য পদক্ষেপ করে ভারত।

সুইডিশ বিদেশমন্ত্রী ভারত ও পাকিস্তানের মধ্যে দ্বিপাক্ষিক আলোচনার কথাও বলেছেন।

চলতি সপ্তাহেই ৬ দিনের ভারত সফরে আসছেন সে দেশের রাজা কার্ল ষোড়শ গুস্তাফ ও রানি সিলভিয়া। রাজা-রানীর প্রতিনিধি দলে থাকবেন অ্যান লিন্ডেও। সেই সফর শুরুর আগেই পার্লামেন্টে তাঁর বক্তব্যে বেশ অস্বস্তিতে নরেন্দ্র মোদি সরকার। তবে নয়াদিল্লি এ নিয়ে সরকারিভাবে কোনও মন্তব্য করেনি।

এর আগে জার্মান চ্যান্সেলর আঙ্গেলা ম্যার্কেল এবং ফিনল্যান্ডের বিদেশমন্ত্রী পেক্কা হাভিস্তো-ও ভারত সফরে এসে কাশ্মীরের পরিস্থিতি নিয়ে উদ্বেগ প্রকাশ করেছেন। কাশ্মীর নিয়ে সরব হয়েছে মার্কিন কংগ্রেসও। তার উপর কাশ্মীর নিয়ে দেশের মধ্যেই বিরোধী দলগুলোর চাপের মুখে আছে মোদি সরকার। সব মিলিয়ে যত দিন যাচ্ছে কাশ্মীর নিয়ে মোদি ততই চাপে পড়ছেন।