যৌন কেলেঙ্কারিতে প্রিন্স অ্যান্ড্রুর নাম

যৌন কেলেঙ্কারিতে এবার উঠে এসেছে রাণী এলিজাবেথের দ্বিতীয় ছেলে ডিউক অব ইয়র্কের প্রিন্স অ্যান্ড্রুর নাম। তার বিরুদ্ধে জোর করে যৌনতার অভিযোগ এনেছেন এক মার্কিন নারী।

ভার্জিনিয়া জফ্রেই নামের ওই নারী বার্তা সংস্থা রয়টার্সকে জানান, আত্মহত্যাকারী মার্কিন বিনিয়োগকারী জেফরি এপস্টেইন তাকে পাচার করে নিয়ে গিয়ে তার বন্ধুদের সঙ্গে দৈহিক মিলনে বাধ্য করেছিলেন, ওই বন্ধুদের মধ্যে ব্রিটিশ প্রিন্স অ্যান্ড্রুও ছিলেন। ওই সময় তার বয়স ১৭ বছর ছিল।

সোমবার সম্প্রচারিত এক সাক্ষাৎকারে জফ্রেই বলেছেন, ২০০১ সালে এপিস্টিন তাকে লন্ডনে নিয়ে গিয়ে প্রিন্স অ্যান্ড্রুর সঙ্গে পরিচয় করিয়ে দেন, যে তিনবার অ্যান্ড্রুর সঙ্গে তার যৌন সম্পর্ক হয়েছিল তার প্রথমটি এ সময়ই ঘটে।

যুক্তরাজ্যের নাগরিকদের পাশে থাকার অনুরোধ জানিয়ে তিনি বলেন, আমার পাশে দাঁড়ান, এই লড়াইটি লড়তে আমাকে সাহায্য করুন, এটিকে সহজভাবে গ্রহণ করবেন না। এটি নোংরা কোনো যৌন গল্প না। এটি একটি পাচারের ঘটনা, এটি নিপীড়ন ও আপনাদের লোকদের রাজকীয় মর্যাদার কাহিনী।

প্রিন্স অ্যান্ড্রু এসব অভিযোগ দৃঢ়ভাবে অস্বীকার করেছেন। ৫৯ বছর বয়সী অ্যান্ড্রু বলেছেন, জফ্রেইয়ের সঙ্গে কখনও দেখা হয়েছে বলে তিনি মনে করতে পারছেন না।

জফ্রেইয়ের সাক্ষাৎকারের প্রতিক্রিয়ায় বাকিংহাম প্যালেসের মুখপাত্র বলেছেন, ডিউক অব ইয়র্কের সঙ্গে ভার্জিনিয়া রবার্টসের কোনো ধরনের যৌন সংস্পর্শ বা সম্পর্ক ছিল, এটি জোরালোভাবে অস্বীকার করা হচ্ছে। এর বিপরীত কোনো দাবি মিথ্যা ও ভিত্তিহীন।